ঢাকাSaturday , 5 March 2022
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও ন্যায়
  4. খেলা ধুলা
  5. জীবন যাপন
  6. টাকা বা ডলারের মান হ্রাস বা বৃদ্ধি
  7. ট্রাফিক সার্জেন্টে
  8. ধর্মীয় রীতিনীতি
  9. পার্ক
  10. প্রশাসন
  11. বিনোদন
  12. বিলাসী
  13. বিসিএস
  14. মামলা
  15. মোবাইল ফোন কোম্পনি
আজকের সর্বশেষ সব খবর

মমেক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

Link Copied!

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের একজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর মানহানিকর মিথ্যা অভিযোগ এনে কর্মসূচি পালন করায় মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল হাসানকে ৩ বছরের জন্য কলেজ থেকে বহিষ্কার করেছে কলেজের একাডেমিক কাউন্সিল।

#New_Classic_Event_Management

শনিবার (৫ মার্চ) বিকেল পৌনে ৬টায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. চিত্তরঞ্জন দেবনাথ বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

এ ঘটনায় আরও ২ শিক্ষার্থীকে ২ বছরের জন্য এবং ৭ শিক্ষার্থীকে ১ বছরের জন্য কলেজ থেকে বহিষ্কার করা হয়। সতর্ক করা হয় আরও ৮ শিক্ষার্থীকে। বহিষ্কৃতরা কলেজের ছাত্রাবাসে অবস্থান করতে পারবে না বলে সভায় সিদ্ধান্ত হয়। একই সাথে কলেজে কোনো সভা সমাবেশও নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বহিষ্কৃতরা হলেন- ছাত্রলীগ কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক ও ৫ম বর্ষের আব্দুল্লাহ আল হাসান। তাকে ৩ বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। ৩য় বর্ষের ফায়াদুর রহমান আকাশ ও তামান্না তাসমিন বহিষ্কার হয়েছেন ২ বছরের জন্য। সুনীতি কুমার দাস, সানবীম খান, মাহিদুল হক, তানবিন হাসান, কাশফী তাবরীজ, রাপ্পু কর্মকার, ও সাখাওয়াত হোসেন সিফাত বহিষ্কার হয়েছেন ১ বছরের জন্য।

এছাড়া সতর্ক করা হয়েছে ৮ শিক্ষার্থীকে। এরা হলেন মাহমুদুজ্জামান, মেহরাব হোসেন, নাজমুছ সাকিব, রিজবী আল নাহিয়ান হিয়া, জিম রহমান, সাকিব খান শাওন, জেরিন তাসনিম, জিহাদুল হক তাঈব।

মেডিক্যাল কলেজ সূত্র জানায়, সকাল ১১টায় সভা শুরু হয়। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সভা শেষ হয়। সভা শেষে কলেজ অধ্যক্ষ অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সভার সিদ্ধান্ত জানান।

অধ্যক্ষ ডা. চিত্ত রঞ্জণ দেবনাথ বলেন, ডা. আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। মিথ্যা অভিযোগকারী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি কলেজ ক্যাম্পাসে একদল শিক্ষার্থী কলেজের সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. মো. আবুল কালাম আজাদ ফাইনাল পরীক্ষায় পাস করানোর শর্তে একজন ছাত্রীকে খারাপ প্রস্তাব দেন এমন অভিযোগ তুলে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। পরবর্তীতে, মেডিক্যালের কতিপয় ছাত্র কর্তৃক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে মিথ্যা যৌন হয়রানির অপবাদ দেওয়ার প্রতিবাদে ও দোষীদের বিচার দাবিতে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষকরা।

এদিকে ঘটনা তদন্তে হাসপাতালের গাইনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. তায়েবা তানজিলা মির্জাকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি গত বৃহস্পতিবার কলেজ প্রশাসনের কাছে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেন। এই রিপোর্টের ভিত্তিতে কলেজের একাডেমিক কাউন্সিল এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Shares

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায়: মুশান্না কম্পিউটার আইটি