ঢাকাSunday , 6 March 2022
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও ন্যায়
  4. খেলা ধুলা
  5. জীবন যাপন
  6. টাকা বা ডলারের মান হ্রাস বা বৃদ্ধি
  7. ট্রাফিক সার্জেন্টে
  8. ধর্মীয় রীতিনীতি
  9. পার্ক
  10. প্রশাসন
  11. বিনোদন
  12. বিলাসী
  13. বিসিএস
  14. মামলা
  15. মোবাইল ফোন কোম্পনি
আজকের সর্বশেষ সব খবর

জেলেনস্কির ক্ষোভ, এখন থেকে সব মৃত্যুর দায় ন্যাটোর

Link Copied!

ন্যাটোর আশ্বাসেই রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সাহস দেখিয়েছিল ইউক্রেন। সবাই ধারণা করেছিল, হয়তো হুমকি-ধামকির মধ্য দিয়েই শেষ হবে এ পর্ব। কিন্তু রাশিয়া যখন সত্যিই হামলা করে বসলো তখন ইউক্রেন পাশে পায়নি কাউকে। এমনকি ইউক্রেনের আকাশকে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণার আবেদনও খারিজ করে দিয়েছে ন্যাটো। ক্ষুব্ধ হয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি ঘোষণা করেন, এখন থেকে সব মৃত্যুর দায় ন্যাটোর। খবর ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

#New_Classic_Event_Management

বিশ্বের শীর্ষ পরাশক্তি রাশিয়ার অব্যাহত আক্রমণে কার্যত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভসহ বেশ কয়েকটি শহর। বছরের পর বছর ধরে যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত সিরিয়া, ইয়েমেনের চেহারাই দেখা যাচ্ছে ইউক্রেনের শহরগুলোতে। লোকজন পালিয়ে গেছে অনেক আগেই। মাঝে মধ্যে পরমাণু কেন্দ্রগুলোতে হামলা করে বিশ্বকে আতঙ্কিত করে তুলছে রুশ বাহিনী। এর মধ্যেও অবশ্য ভালো প্রতিরোধই গড়ে তুলেছিল ইউক্রেনীয় বাহিনী।

কিয়েভ চেয়েছিল, এ অবস্থায় ন্যাটো তার পাশে দাঁড়াক। এ ব্যাপারে শুরু থেকেই আহ্বান জানাচ্ছিলেন জেলেনস্কি। তার আহ্বানে ইউক্রেনকে ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী মিসাইল, বোমা ও যুদ্ধবিমানসহ সরঞ্জাম সরবরাহ করছে সংস্থাটি। কিন্তু সরঞ্জাম পৌঁছে দিয়েই দায় সেরেছে তারা।

ন্যাটো জোটের কাছে ইউক্রেনের আকাশকে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণা করার আবেদন জানিয়েছিলেন জেলেনস্কি। এর জবাবে সামরিক জোটটির প্রধান জেন্স স্টলটেনবার্গ বলেন, ইউক্রেনের আকাশে নো ফ্লাই জোন তৈরি করতে হলে ন্যাটোকে যুদ্ধবিমান পাঠাতে হবে। প্রয়োজনে হানাদার রুশ ফাইটার জেটগুলোকে গুলি করে নামতে হবে। আর তেমনটা হলে রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ব আমরা।

জেলেনস্কির ক্ষোভ, এখন থেকে সব মৃত্যুর দায় ন্যাটোর

ন্যাটো প্রধানের এমন জবাবের পরেই ক্ষোভ ঝাড়েন জেলেনস্কি। তিনি বলেন, ইউক্রেনের আকাশপথকে সুরক্ষা দিতে নারাজ ন্যাটো। তারা এমন একটা ধারণা তৈরি করেছে যে, আকাশপথ বন্ধ করলে সরাসরি রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ বেঁধে যাবে। এটা এমন দুর্বল ও অনিশ্চয়তায় জর্জরিতদের ধারণা, যাদের কাছে আমাদের চেয়ে অনেক বেশি অস্ত্র রয়েছে। আজ থেকে সব মৃত্যুর দায় ন্যাটোর।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি পুতিনের ঘোষণার মধ্য দিয়ে ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করে রাশিয়া। সেই লড়াইয়ের ধারাবাহিকতায় কিয়েভ, খারকভসহ বেশ কয়েকটি শহর এখন অবরুদ্ধ।

প্রবল লড়াই চালিয়ে এ পর্যন্ত ১০ হাজারের বেশি রুশ সেনাকে খতম করার দাবি করেছে ইউক্রেন। একইসঙ্গে, প্রতিপক্ষের ২৮০টি ট্যাঙ্ক, ২৫টি যুদ্ধবিমান ও কয়েকশো সাঁজোয়া গাড়ি ধ্বংস করার দাবি করেছে কিয়েভ। তবে মস্কো জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত তাদের মাত্র ৪৯৮ জন সেনাসদস্যের মৃত্যু হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Shares

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায়: মুশান্না কম্পিউটার আইটি